আদালতে জমা করার কথা বলে ঈদগাওঁ বাজারের রমজান মুন্সী পশ্চিম গোমাতলীর আব্দুল কাদের সৌদাগর থেকে ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা আত্মসাৎ করে

রবীন খানঃ আদালতে জমা করার কথা বলে ঈদগাওঁ বাজারের রমজান মুন্সী (01817-274497) পশ্চিম গোমাতলীর আব্দুল কাদের সৌদাগর থেকে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেন।

এই ব্যাপারে ভুক্তভোগী জনাব আব্দুল কাদেরে সাথে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বলেন, ” তার তৃতীয় ছেলে সৌদি আরব প্রবাসী জনাব রাইহানুল ইসলামের সাথে তার স্ত্রীর বনীবনা না হলে, তিনি স্ত্রীকে তালাক দিয়ে দেন। এই তালাকের আইনগত প্রকৃয়া আদালতের মাধ্যমে শেষ করার জন্য রাইহানুল ইসলাম তার পিতাকে জনাব আব্দুর কাদেরের কাছে ১,৫০,০০০ টাকা প্রেরণ করেন।

আল-জাজিরাকে যা যা বললেন মুহিবুল্লাহর স্ত্রী, ভাই ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা

বিপদের দিনে শাহরুখের বাড়িতে সালমান

জনাব আব্দুর কাদের সাহেব নুরুল আমিন (প্রকাশ জম্বির মলই) এর পরামর্শে (প্ররোচনায়) ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা তার সাক্ষাতে ঈদগাওঁ বাজারের রমজান মুন্সিকে দেন। এবং তাদের মধ্যে কথা হয়, ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা থেকে রমজান মুন্সি ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা আদালতে জমা করবেন বাকি টাকা মামলা ফি ও নিজের ফি নেবেন। সর্বোপরি, আদালতের মাধ্যমে জনাব রাইহানুল ইসলাম ও তার স্ত্রীর বিবাহ বিচ্ছেদ কার্যকর করবেন।

নিচের ভিড়িওতে রমজান মুন্সী জনাব কাদের সাহেবের সাথে কথা বলছেন ও ১,৫০,০০০ টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করছেন

রমজান মুন্সী জনাব কাদের সাহেবের সাথে কথা বলছেন ও ১,৫০,০০০ টাকা নেয়ার কথা শ্বীকার করছেন

কিন্তু, ঈদগাওঁ বাজারের কুখ্যাত রমজান মুন্সি এক টাকাও আদালতে জমা না করে, সম্পূর্ণ ১,৬৫,০০০ টাকা আত্মস্যাৎ করেন ও আব্দুল কাদের সাহেবকে জানান যে, ১,৫০, ০০০ টাকা আদালতে জমা করেছেন ও জনাব রাইহান সাহেবের স্ত্রী আদালত থেকে ঐ টাকা তুলে নিতে পারবেন ও কিছু দিনের মধ্যে আইনত বিবাহ বিচ্ছেদ কার্যকর হবে।

আসলে, কুখ্যাত রমজান মুন্সি আদালতে ১ টাকা ও জমা না করে, রাইহান সাহেবের সাবেক স্ত্রী ১,৫০,০০০ টাকা বুঝে পেয়েছেন মর্মে জাল ও ভুয়া স্ট্যাম্প তৈরী করেন। ও ভুক্তভূগী নারীকে আদালতের মাধ্যমে হয়রানি করার হুমকি-ধমকি দেয়া শুরু করেন। “

রমজান মুন্সী নীরীহ ও সদ্য তালাক প্রাপ্ত নারীকে ১ টাকাও না দিয়ে ১,৫০,০০০ টাকা বুঝে পেয়েছে মর্মে বন্ডে সাইন করে বিচ্ছেদ মেনে নিতে চাপ দিতে থাকেন। সে এমন হুমকিও দিচ্ছিল যে, এই মহিলা যদি মহিলা বন্ডে সাইন না করে ও বিচ্ছেদ মেনে না নেয় তবে জাল ও ভূয়াঁ স্ট্যাম্পের সাহায্যে আদালতের মাধ্যমে তাকেঁ জেলের ভাত খাওয়াবে।

এই ব্যাপারে ভুক্তভোগী নারী তার সাবেক স্বামী ও স্হানীয় জন প্রতিনিধিদের সাথে যোগাযোগ করেন, আর জনপ্রতিনিধিরা রাইহান সাহেবের পিতার সাথে যোগাযোগ করলে, তিনি তাদের জানান যে রমজান মুন্সির মাধ্যমে তিনি ঐ নারীর জন্য ১,৫০,০০০ টাকা জমা করেছেন।

তখনই, জন প্রতিনিধিরা ওনাকে রমজান মুন্সীর তৈরী করা ভূয়া স্ট্যাম্প ও ডকুমেন্ট সমূহ দেখান, যেখানে রমজান মুন্সি ভুক্তভোগী মহিলা ১,৫০,০০০ টাকা বুঝে পেয়েছেন মর্মে জাল নথি তৈরী করেন ও এক জন্য সম্মানীত আইন জীবীর মাধ্যমে আদালতে মামলা ও করেন।

রমজান মুন্সীর সাথে কাদের সাহেব যোগাযোগ করলে, সে টাকা আদালতে জমা করছে বলে, অন্যদিকে নীরিহ মহিলাকে টাকা ছাড়া ডকুমেন্টে সাইন করতে চাপ দিতে থাকে।

এখন, কাদের সাহেব ঐ ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা ফেরত চাইলে ও মহিলাকে দিয়ে দিতে বল্লে সে টাকা ফেরত দিতে অস্বীকার জানায়। বরঞ্চ আদালতের মাধ্যমে জনাব কাদের সাহেবকেও হয়রানি করার হুমকি-ধমকি দিতে থাকেন।

এই ব্যাপারে জানার জন্য প্রতিবেদক রমজান মুন্সীর নাম্বারে ( 01817-274497) যোগাযোগ করলে তিনি প্রতিবেদককেও দেখে নেয়ার হুমকি দেন।

অন্যদিকে, জম্বির মলই জানান, তার সামনেই আসলে রমজান মুন্সি কাদের সৌদাগরের কাছ থেকে ১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা নিয়েছেন আদালতে জমা করার কথা বলে। এখন কেন তিনি জাল নথি তৈরী করলেন, কেনইবা টাকা নেওয়ার কথা অস্বীকার করছেন, সেটা তার বোধগম্য নয়। উপরন্তু, তিনিও রমজান মুন্সীর ভয়ে বেশী কথা বলতে রাজি হননি।

নিচের ভিড়িওতে নুরুল আমিন সাক্ষ্য দিচ্ছেন যে রমজান মুন্সি তার সামনে টাকা নিয়েছেন

নুরুল আমিন সাক্ষ্য দিচ্ছেন যে রমজান মুন্সি তার সামনে টাকা নিয়েছেন

জনাব আব্দুল কাদের সাহেব জানান তিনি রমজান মুন্সির হুমকিতে খুবই ভীত হয়ে আছে ও কোন থানা বা আদালতে শালিশ দিতেও ভয় পাচ্ছেন। তাছাড়া, রমজান মুন্সি বার বার আদালত, পুলিশ এ উকিলের ভয় দেখাতেও থাকেন যেন তিনি কোন বিচার না দেন বা মামলা না করেন।

রমজান মুন্সি ও ইদগাঁও থানার দালাল জম্বির মলই যেন এক উদীয়মান ত্রাস। ঈদগাঁও বাজার কমিটি ও ইউনিয়ন পরিষদের বেশ কয়েকজন নেতা ও তাদের এই টাকা আত্মস্যাৎতের ব্যাপারে বিচারে বসাতে অসামর্থ হন। ঈদগাঁও বাজারের সকল নেতা যেন তাদের ভয়ে ভীত!!!

By CBN